করোনার গুজবরোধে মিডিয়ায় ডাক্তারের প্রোগ্রাম করতে লিগ্যাল নোটিশ

নিউজ নিউজ

ডেস্ক

প্রকাশিত: ২:২১ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ২৩, ২০২০

করোনাভাইরাস সম্পর্কিত এবং এর প্রতিরোধ ব্যবস্থা নিয়ে বিভিন্ন মাধ্যমে ছড়ানো গুজব প্রতিরোধে দেশের সব ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের বিশেষ প্রোগ্রাম করতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্টদের লিগ্যাল নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

করোনা নিয়ে কী কী ভয় এবং তার সমাধান কী এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে যা প্রকাশ পাচ্ছে তা নিয়ে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দিয়ে দেশের সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন টিভি চ্যানেল, রেডিও, এফএম ব্র্যান্ড এবং স্থানীয় ক্যাবল নেটওয়ার্ক চ্যানেলে প্রোগ্রাম করতে হবে।

এমন দাবিতে জনস্বার্থে রোববার ডাক ও রেজিস্ট্রিযোগে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মো. মনিরুজ্জামান লিংকন বাংলাদেশ সচিবালয়ের সচিব, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব ও তথ্য মন্ত্রণালয়ের সচিবকে এই নোটিশ পাঠান। নোটিশ পাঠানোর বিষয়ে তিনি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, করোনাভাইরাস এবং এর গুজবরোধে সব ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় বিশেষজ্ঞ ডাক্তার দ্বারা বিশেষ প্রোগ্রাম করার জন্য নোটিশ দেয়া হয়েছে।

আগামী সাত দিনের মধ্যে করোনভাইরাস এবং গুজবরোধে তাৎক্ষণিক সব ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় বিশেষজ্ঞ ডাক্তার দ্বারা বিশেষ প্রোগ্রাম পরিচালনার জন্য যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণের ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট করা হবে।

যে কারণে নোটিশ দেয়া হয়েছে- যেহেতু করোনাভাইরাস বিশ্বে মহামারি রূপ ধারণ করেছে, যা ইতোমধ্যে আমাদের প্রিয় স্বদেশকে সংক্রমিত করেছে। সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে এই রোগ প্রতিরোধে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়া সত্ত্বেও জনগণের মাঝে এই নিয়ে হইচই চলছে। এ কারণে আমরা এটির জন্য বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণের প্রয়োজনীয়তা দেখছি।

আইনজীবী জানান, কেনোনাভাইরাস নতুন এবং শরীরে এই ভাইরাসের প্রভাব সাধারণ মানুষের কাছে অজানা এবং ভাইরাসের প্রভাবের জন্য এ জাতীয় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

করোনাভাইরাস সম্পর্কে সঠিক ধারণা না থাকার কারণে বর্তমানে এই রোগটি আমাদের দেশে সোশ্যাল মিডিয়াসহ বিভিন্ন উপায়ে বিস্তার সম্পর্কে বলা হচ্ছে যা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে বিরূপ প্রভাব সৃষ্টি করছে। যা ছড়িয়ে পড়ে এবং মানুষ আতঙ্কিত হয়।

বর্তমানে, রেডিও এবং টেলিভিশনের মাধ্যমে করোনার প্রতিরোধমূলক প্রতিকার এবং প্রতিরোধ সম্পর্কে ধারণা দেয়া হচ্ছে, যা জনগণের মধ্যে সচেতনতা তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে। তার পরও মানুষ বিভিন্ন সময় বিভিন্ন তথ্য দেখে বিভ্রান্ত হচ্ছে। বিভ্রান্তি দূর করে সঠিক সমাধান দিতে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের মাধ্যমে মানুষের সামনে কথা বলানো দরকার।

নোটিশে আইনজীবী বলেন, রোগীরা স্থানীয় চিকিৎসকদের সঙ্গে যোগাযোগ করার পরে ডাক্তাররা তাদের চিকিৎসা দেয়ার জন্য উৎসাহিত হন না, এমন অভিযোগ এবং গুজবও রয়েছে। তাই সরকারের পক্ষ থেকে ডাক্তারদের মাধ্যমে সম্প্রচার করা খুব গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

তিনি জানান, বর্তমান তথ্য প্রযুক্তির যুগে মানুষ স্থানীয় পর্যায়ে বেসরকারি এফএম ব্র্যান্ড, রেডিও এবং টেলিভিশন ব্যবহার করছে।

এদিকে যেহেতু বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে করোনার চিকিৎসা সম্পর্কে প্রচুর বিভ্রান্তিকর তথ্য সরবরাহ করা হচ্ছে ভুক্তভোগীরা স্থানীয়দের কাছ থেকে আশ্রয় নিতে বা নিজের বাড়িতে থাকতে চায় না।

আর যেহেতু সাধারণ মানুষ চিকিৎসক যা বলে এবং তাদের কথাকে মূল্যায়ন করে এবং তাদের সর্বাধিক সম্মান করে তাই ডাক্তারদের দ্বারা এটি জরুরি ভিত্তিতে রোগ নিরাময়ের জন্য প্রয়োজনীয় সেবাগুলি পেতে পারে। সরকারি এবং বেসরকারি বিভিন্ন চ্যানেলে (মিডিয়া) বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের মাধ্যমে রোগ নিরাময়ের জন্য বাড়িতে প্রয়োজনীয় পরিসেবাগুলি গ্রহণ করতে পারে।

আর ডাক্তারদের প্রেসক্রিপশন সরবরাহ বাস্তবায়নের জন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের অবশ্যই এই সমস্যা সমাধানে বিভিন্ন টিভি চ্যানেল রেডিও এফএম ব্র্যান্ড এবং স্থানীয় কেবল নেটওয়ার্ক চ্যানেলে কথা বলতে হবে।

আইনজীবী নোটিশে বলেন, উপরোক্ত পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে এবং সংশ্লিষ্টদেরকে প্রতি সাতদিনের মধ্যে করোনভাইরাস এবং এর গুজবরোধের জন্য সব ইলেক্ট্রনিক মিডিয়াতে বিশেষজ্ঞ ডাক্তার দ্বারা বিশেষ প্রোগ্রাম পরিচালনার জন্য যথাযথ এবং তাত্ক্ষণিক পদক্ষেপ গ্রহণের ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে হাইকোর্টে রিট করা হবে।

আপনার মতামত দিন :