করোনা: বিএসএমএমইউতে সাদামাটা আয়োজনে স্বাধীনতা দিবস পালন

নিউজ নিউজ

ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:৫৯ অপরাহ্ণ, মার্চ ২৬, ২০২০

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের প্রকোপ ছড়িয়ে পড়েছে সারা বিশ্বেই। বাংলাদেশেও হানা দিয়েছে এ ভাইরাস। সংক্রমণ ঠেকাতে সারাদেশেই লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার।

দেশের এ অবস্থায় ঝুঁকি এড়াতে অনেকটাই রংহীন আর সাদামাটা আয়োজনে সীমিত কর্মসূচিতে মহান স্বাধীনতা দিবস পালন করেছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ)।

বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) সকালে ক্যাম্পাসে জাতীয় পতাকা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব পতাকা উত্তোলন করা হয়। পরে বি ব্লকে স্থাপিত বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালের সামনে ১ মিনিট দাঁড়িয়ে নীরবতা পালনের মাধ্যমে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেই কর্মসূচির সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

এসময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়াসহ উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. সাহানা আখতার রহমান, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. মুহাম্মদ রফিকুল আলম, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আতিকুর রহমান, রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল হান্নান, প্রক্টর অধ্যাপক ডা. সৈয়দ মোজাফফর আহমেদ উপস্থিত ছিলেন।

তবে, মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস ২০২০ উপলক্ষে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগীদের মাঝে উন্নতমানের খাবার পরিবেশনের ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিএসএমএমইউ জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রশান্ত কুমার মজুমদার।

তিনি বলেন, করোনা ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে অন্যান্যবারের ন্যায় এবছর স্বাধীনতা দিবসে কোনো ধরণের জনসমাবেশ করা হয়নি এবং কর্মসূচীগুলো পালন করা হয়নি। মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া ইতোমধ্যে কোভিড ১৯ মহামারী মোকাবেলায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, চিকিৎসক, নার্স, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে নিয়ে রোগী ও মানুষের পাশে থাকার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন। এছাড়াও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইডলাইন অনুযায়ী সংশ্লিষ্টদের ব্যক্তিগত নিরাপত্তা সামগ্রী নিশ্চিত করার জন্য জরুরি ভিত্তিতে সম্ভাব্য পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন এবং তা অব্যাহত রয়েছে।

প্রশান্ত কুমার বলেন, উপাচার্য মহোদয়ের নেতৃত্বে বর্তমান প্রশাসন জাতির এই ক্রান্তিলগ্নে জনগণের চিকিৎসাসেবা ও সার্বিক কল্যাণে প্রয়োগের সুযোগ সৃষ্টির জন্যে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে হাসপাতালে জীবাণুনাশক স্প্রে করাসহ মাস্ক, হ্যান্ডস্যানিটাইজার, গ্লোভসসহ পিপিই-এর ব্যবস্থা করা হয়েছে এবং এই কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।

আপনার মতামত দিন :