১২ বছর ধরে মেডিকেল টেকনোলজিস্ট নিয়োগ বন্ধ, করোনা পরীক্ষা করবে কারা?

নিউজ নিউজ

ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:৩৭ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ২৮, ২০২০

দীর্ঘ এক যুগ (১২ বছর) থেকে সরকারী নিয়োগ বন্ধ যারা করোনা বিভিন্ন রোগ নির্ণয় করে।
এজন্য সরকারি হাসপাতালের ডায়াগনস্টিক সেবাগুলো বন্ধ, হাতে গনা সস্তা কিছু টেষ্ট হয় সরকারি হাসপাতালে।

ভারী আর দামী টেস্ট গুলো হয় প্রাইভেট হাসপাতালে ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোতে।
সেখানে হরমোন আর পিসিআর (PCR) 100 এর মধ্যে ০.৫ % হয় সরকারি হাসপাতালে। আর PCR শুধুমাত্র IEDCR এ হয় সরকারি ভাবে। অন্যকোন সরকারি হাসপাতালে PCR হয় না।(২/১টা হতেও পারে এখন) আর যারা এই টেস্ট করবে তাদের নিয়োগও হয় না ১২ বছর।

তাই প্রাইভেট প্রতিষ্ঠান গুলো রমরমা ব্যবসা করে যাচ্ছে। বেসরকারি ও স্বায়িত্বশাসিত সব মিলে ৩০ এর অধিক PCR ল্যাব আছে।

কিন্তু আজ সরকার অনুধাবন করছে PCR দেশের জন্য কতটা জরুরী হয়ে দাড়িয়েছে। কিন্তু PCR মেশিন কিনলেই কি সরকারি হাসপাতালে PCR টেষ্ট করতে পারবে? না পারবে না।

কারন যারা PCR করবে সেই মেডিকেল টেকনোলজিষ্টদের নিয়োগ নাই দীর্ঘ ১২ বছর। আর যে কোন ধরনের উন্নত চিকিৎসা প্রযুক্তির প্রশিক্ষণ কখনোই ছিল না।

আজ তারা বুঝতে পেরেছে আর তাই বিভিন্ন হাসপাতালে কর্মরত মেডিকেল টেকনোলজিষ্টদের আহবান জানাচ্ছেন করোনা মোকাবিলায় PCR ট্রেনিং নিতে আর কাজ করতে।
তবে শুধু সংকট কালীন নয় সংকট কেটে গেলেও মেডিকেল টেকনোলজিষ্টদের যথাযথ মূল্যায়ন করবেন আশা রাখি

উল্লেখ্য মেডিকেল টেকনোলজিষ্টরা এখন আর ডিপ্লোমা করে বসে নাই, তারা ক্ষেত্র ভেদে বিএসসি-এমএসসি বায়োকেমিস্ট তে অনার্স-মাস্টার্স, মাইক্রোবায়োলজি তে অনার্স-মাস্টার্স অনেকে পিএইচডি ও করতেছে, অথচ তাদের পোষ্ট সেই ডিপ্লোমা ধরেই আছে। যারা কি না, যোগ্যতা ভেদে ১ম শ্রেনী ও ২য় শ্রেনীর দাবীদার।

যাদের নাম হওয়ার কথা বায়োকেমিস্ট, মাইক্রোবায়োলজিষ্ট, জুনিয়র সায়েন্টিস্ট ও সিনিয়র সায়েন্টিস্ট।

আজ দেশের এই ক্লান্তিলগ্নে এই পেশাটাকে চিনুন, জানুন, গুরুত্ব অনুধাবন করুন। আমাদের এই শিক্ষা আর ডিগ্রি গুলোকে মূল্যায়ন করুন।

তাহলে এদেশেই সম্বভ হবে আন্তর্জাতিক মানের চিকিৎসা।

১. সঠিক রোগ নির্ণয়- মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট
২. সুচিকিৎসায় – ডাক্তার
৩. সুস্থ সেবা – নার্স।
এটা মনে রাখতে হবে সুচিকিৎসার পূর্ব শর্ত সঠিক রোগ নির্ণয়।

মোঃ শফিউল আজম
মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট

আপনার মতামত দিন :