এক রোগী একইদিনে ভিন্ন ভিন্ন প্যাথলজিতে ভিন্ন ভিন্ন রিপোর্ট!

নিউজ নিউজ

ডেস্ক

প্রকাশিত: ৫:২৯ অপরাহ্ণ, মে ৩০, ২০২০

অনুসন্ধানী রিপোর্ট ১ :

বাংলাদেশে আপনি খুব বড় একটা প্রতিস্টানে যাবেন রক্তের হিমোগ্লোবিন টেস্ট করাতে,, , বা কিডনির টেস্ট ক্রিট্টিনিন টেস্ট দুটো ল্যাব দুটো রিপোর্ট এটা হবে ৯৫ % ল্যাবরোটরীতে এর কারন কি আমরা খুঁজি বা জানতে চাই! না আমরা আসলে আসল কাজ টা করি না আমরা নফল নামাজ নিয়ে বেশি মাতামাতি করি, এর সুনিদিস্ট কারন সরকার চেস্টা এখন পযন্ত করছে বলে আমার চোখে পড়ে নাই আবার করতে ও পারে, আর করলে এত রোগী ভারত কেন যাবে শুধু রোগ নির্ণয় করার জন্য?
মজার বিষয় হল বছরে একবার শুনি বড় ডায়াগনস্টিক সেন্টার জরিমানা হইছে ডেট অভার রিজেন্ট ব্যবহাড় করায় তখন হাসি পায় কারন এতে প্রতারনা বাড়ছে ছাড়া কমবে না কারন নস্ট রিজেন্ট বা ডেট অভার ঔষুধ আবার নতুন প্যাকেটে আসে আবার মজার ব্যাপার হল যারা জরিমানা করে সেখানে প্যাথলজি তে কাজ করা মেডিকেল টেকনোলজিস্ট বা প্যাথলজিতে অভিজ্ঞতা বায়োকেমিস্ট থাকে না, রোগ ধরার জন্য চিকিৎসক না নিয়ে তারা কবিরাজি ঔষধ প্রয়োগ করছে ফলে জনসাধারণ বৃটিশ আমলে যে কস্ট করছে এখন তাই করছে, আসুন সিস্টেম পরিবর্তন করি
এখন একজন গাইনী চিকিৎসক কে যদি টনসিল অপারেশন করতে দেওয়া হয় কেমন হবে? আসলে যার যার বিষয় তাদের নিয়ে আলোচনা করলে মনে হয় সমস্যা টা সঠিক সমাধান হয় সাধারণ মানুষ ও উপকার পায়

Absolute diagnosis for proper treatment..
সঠিক রোগ নির্ণয়ের পূর্ব শর্ত হলো সঠিক রোগ নির্ণয় করা।আমদের দেশে রোগ নির্ণয়ের জন্য যথেষ্ট পরিমান রোগ নির্ণয়ের প্রাণ ( Nucleus of laboratory) তথা Medical Technologist থাকা সত্ত্বেও একই রোগির রিপোর্ট একাধিক ল্যাবরেটরিতে ভিন্নতা (variation) দেখা দেয়।বিজ্ঞান ভিত্তিক Standard Deviation (SD) +- 5 হতে পারে।কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই এর ব্যত্যয় ঘটে।ফলে রিপোর্টের প্রতি আস্থাহীন হয়ে একটা বিপুল অংশ রোগী প্রতিবেশি দেশসহ বিদেশে বিলিয়ে আসেন এদেশের অর্থ।

একটা Sample এর Unique result নিশ্চিত করার জন্য Quality Control (QC),Quality Assurence (QA) কিংবা Quality Management (QM) করা অপরিহার্য। QC নিশ্চিত করার জন্য Accuracy, Precission,Sensitivity,Specificity ১০০% নিশ্চিত করতে হবে।

Accuracy এবং Precission নির্ভর করে সংশ্লিষ্ট মেডিকেল টেকনোলজিস্ট এর দক্ষতা এবং অভিজ্ঞতার উপর।Sensitivity এবং Speceficity গুনগত মান নির্ভর করে সংশ্লিষ্ট Instrument এর Efficacy ‘র উপর।

আর সামগ্রিক ভাবে Accuracy, Precission,Sensitivity এবং Specificity যৌথভাবে Standard Operating Procedure (SOP) এর উপর নির্ভরশীল।
SOP সঠিকভাবে প্রতিপালনের জন্য একটি নমুনার আন্তঃল্যাবরেটরি সমূহে Cross Cheking বাধ্যতামূলক।

আমাদের দেশে এখন পর্যন্ত National Standard Laboratory গড়ে ওঠেনি। তবে ঢাকার আগার গাঁওয়ে প্রতিষ্ঠিত Institute of Laboratory Medicine and Referal Center (NILMRC) আমাদের আশার বাতিঘর হতে পারে।

দেশে বিদ্যমান ল্যাবরেটরি ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে ব্যবহৃত Laboratory Instruments গুলো সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের ইচ্ছা অনুযায়ী স্থাপন করা হয়ে থাকে।
এটার Sencitivity,Specificity ‘র মানদন্ড নিয়ে কোথাও জবাবদিহি করতে হয় না।এমনকি যেসব Reagent ব্যবহার করা হয় সেগুলির Efficacy নিয়েও তেমন একটা বাছবিচার এর বাধ্যবাধকতা সচরাচর দেখা যায় না।

আমাদের NILMRC কে আরো শক্তিশালী করে Bangladesh Standard and Testing Institute (BSTI) এর মত এ সকল Laboratory Instrument এবং Dignostic Kits এবং Reagent এর মাননিয়ন্ত্রন এর ক্ষমতা প্রদান করা সময়ের দাবী।

NILMRC কে জাতীয় রেফারেন্স ল্যাবরেটরীর মর্যাদায় উন্নীত করে তার আওতায় প্রতিটি জেলা সদরে একটি করে Reference Laboratory প্রতিষ্ঠা করতে হবে।যেখানে সংশ্লিষ্ট জেলায় বিদ্যমান মেডিকেল কলেজ (যদি থাকে) এবং সদর হাসপাতালের আন্তঃসমন্বয় থাকবে।প্রতিষ্ঠানকে ২৪ ঘন্টা সেবা দেওয়ার উপযোগী করে গড়ে তুলতে হবে।

NILMRC থেকে সংশ্লিষ্ট Laboratory Instrument,Diagnostic Kit এবং Reagent এর Unique SOP তৈরি করে দেশের সকল ল্যাবরেটরিতে প্রেরন করতে হবে এবং বাধ্যতামূলক Cross cheking করাতে হবে।
এজন্য গ্রাজুয়েট এবং পোস্ট গ্রাজুয়েট মেডিকেল টেকনোলজিস্টদের Laboratory Quality Control Officer হিসেবে NILMRC এর মাধ্যমে দক্ষতা বৃদ্ধি করে মাঠ পর্যায়ে Super Vission এর জন্য কাজে লাগাতে হবে।
সরকারী-বেসরকারী এবং ব্যক্তিপর্যায়ে গড়ে ওঠা ল্যাবরেটরি /ডায়াগনস্টিক সেন্টারে কর্মরত সকল মেডিকেল টেকনোলজিস্ট কে নিয়মিতভাবে NILMRC তে প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা করতে হবে।

প্রত্যাশা করি সকল ল্যাবরেটরির রিপোর্ট হোক অভিন্ন।মানুষ হয়ে উঠুক আস্থাশীল।রোগ নির্নয়ে কমে আসুক বিদেশ নির্ভরতা…
স্বাস্থ্য মন্তানালায় উচিত শক্তি শালী টিম করে উপজেলা ইউনিয়ন সব স্থানে ক্লিনিক বন্ধ করে সঠিক লোক সঠিক রিজেন্ট, ওষুধ সব ১০০% মান নিয়ন্ত্রণ করা এবং যারা বুজে তাদের কে দায়িত্ব দেওয়া

মো: তাহেরুল ইসলাম
বিএসসি ইন মেডিকেল টেকনোলজিস্ট (ডিইউ)
প্রভাষক
আইএইচটি, বরিশাল

আপনার মতামত দিন :