পশ্চিমবঙ্গে একদিনে তিন চিকিৎসকের মৃত্যু

নিউজ নিউজ

ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০:৪২ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৪, ২০২০

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে একদিনে তিন চিকিৎসক মারা গেছেন। তারা হলেন: কামারহাটি সাগর দত্ত মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অধ্যক্ষ হাসি দাশগুপ্ত, জলপাইগুড়ির চিকিৎসক মৃণাল আচার্য ও রমেন হাজরা। এ ঘটনায় সে দেশের চিকিৎসকরা উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার (৩ ডিসেম্বর) বিকেলে কলকাতা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় হাসি দাশগুপ্তের মৃত্যু হয়। আগে নীলরতন সরকার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সুপার ছিলেন তিনি। বদলি হয়ে কামারহাটি সাগর দত্ত মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যোগ দেন তিনি।

গত মঙ্গলবার একটি অনুষ্ঠানে যোগ দেন হাসি দাশগুপ্ত। এ সময় তার কোনো শারীরিক সমস্যা ছিল না। তবে বুধবার (২ ডিসেম্বর) সকালে হাসপাতালে আসার পরে তার শ্বাসকষ্ট শুরু হয়।

স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে দেখা যায়, অক্সিজেনের মাত্রা ৭৫ ভাগের নিচে নেমে গেছে। পরে তাকে দ্রুত ওই হাসপাতালেই অক্সিজেন দেওয়া হয়। সিটি স্ক্যান করে দেখা যায়, হাসির ফুসফুস অর্ধেকের বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ওই দিন বিকেলে তার করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে।

চিকিৎসকেরা জানান, হাসি দাশগুপ্তের বেশি মাত্রায় সুগার ও রক্তচাপেরও সমস্যা দেখা দিতে শুরু করে। দ্রুত অবস্থার অবনতি হতে থাকায় বুধবার রাত আটটার দিকে তাকে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। সেই সঙ্গে ওই দিনই তার স্বামীকেও মেডিকেলে ভর্তি করা হয়। তিনিও করোনায় আক্রান্ত।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার সকালে হাসির অবস্থার অবনতি হতে শুরু করে। রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা ক্রমশ নামতে থাকায় তাকে ভেন্টিলেশনে রাখার পরিকল্পনা করেন চিকিৎসকরা। কিন্তু তার আগেই হাসির মৃত্যু হয়। তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন পশ্চিমবেঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এদিকে এদিন সন্ধ্যায় শিলিগুড়ির এক বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসক মৃণাল আচার্যের মৃত্যু হয়। তিনি জলপাইগুড়ি জেলা সদর হাসপাতালে দীর্ঘদিন নাক-কান-গলা (ইএনটি) বিভাগের সার্জন ছিলেন। সম্প্রতি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন মৃণাল আচার্য।

এ দিন দুপুরে ঢাকুরিয়ার একটি বেসরকারি হাসপাতালে মৃত্যু হয় কল্যাণীর বাসিন্দা কার্ডিও থোরাসিক ভাস্কুলার সার্জন রমেন হাজরার। কয়েক দিন আগে তিনি হাসপাতাল থেকে ছুটি পেয়ে বাড়ি ফেরেন। পরে বেশকিছু সমস্যা নিয়ে ফের হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। পরে তার মৃত্যু হয়।

করোনাভাইরাসে একের পর এক চিকিৎসকের মৃত্যুতে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন অ্যাসোসিয়েশন অব হেলথ সার্ভিস ডক্টরস পশ্চিমবঙ্গের সম্পাদক চিকিৎসক মানস গুম্টাসহ রাজ্যের চিকিৎসকরা।

আপনার মতামত দিন :