শিক্ষককে খুশি করে মিলছে মেডিকেল ডিগ্রি

নিউজ নিউজ

ডেস্ক

প্রকাশিত: ১:৩৬ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৯, ২০২০

শিক্ষকদের খুশি করে ও মুখস্থবিদ্যার মাধ্যমেও অনেক মেডিকেল কলেজ থেকে ডিগ্রি পাওয়া যায় বলে মনে করেন দেশের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা। তাঁরা বলছেন, ‘দেশে চিকিৎসা শিক্ষার মান এখন সর্বকালের সর্বনিম্ন। পূর্বের শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের মানের তুলনায় বর্তমান শিক্ষকরা নিম্নমানের।’

এছাড়া দেশে চিকিৎসক, নার্স এবং অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীদের বিভিন্ন প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা থাকলেও তা একেবারেই মানসম্পন্ন নয় বলে মনে করেন তারা।

রোববার (০৬ ডিসেম্বর) স্বাস্থ্য ব্যবস্থা উন্নয়ন ফোরাম আয়োজিত ‘ইন সার্ভিস ট্রেনিং ফর হেলথ প্রফেশনালস ইন বাংলাদেশ: চ্যালেঞ্জেস এন্ড অপরচুনিটি’ শীর্ষক ওয়েবিনারে বক্তারা এসব মতামত ব্যক্ত করেন।

কম্বোডিয়ার রাজধানী নমপেন থেকে বিশ্ব ব্যাংকের সিনিয়র হেলথ স্পেশালিস্ট এবং স্বাস্থ্য ব্যবস্থা উন্নয়ন ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা ড. জিয়াউদ্দিন হায়দারের সঞ্চালনায় বক্তারা বলেন, ‘স্বাস্থ্য পেশায় কর্মরতদের জন্য নিজ নিজ ক্যারিয়ার ঠিক করতে কোনও চাকরিকালীন প্রশিক্ষণ প্রটোকল নেই যার মাধ্যমে তাদের পদায়ন হবে কিনা বা পদোন্নতি কিভাবে হবে তা নিরূপণ করা যেতে পারে। যার ফলে উদাহরণস্বরূপ, অনেক চিকিৎসক কখনোই পদোন্নতিপ্রাপ্ত হন না অথবা অনেককে এমন জায়গায় পদায়ন করা হয়, যেখানে কাজ করার পর্যাপ্ত দক্ষতা তাদের নেই।’

ওয়েবিনারে এশিয়ান উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) অর্থায়নে কোভিড-১৯ প্রজেক্টের প্রজেক্ট ডিরেক্টর ডা. নাজমুল বলেন, সদ্য বিসিএস পাশ করা চিকিৎসকদের প্রত্যন্ত অঞ্চলে পাঠানো হলেও চাকরিকালীন সময়ে কোনও বিশেষ ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থা থাকে না। কিছুদিন চাকরির পর তাদের ছোট ছোট কিছু ট্রেনিংয়ের আহবান করা হলেও সেসব জায়গায়তেও রয়েছে ভীষণ প্রতিযোগিতা। সবাইকে প্রশিক্ষণ দেয়ার স্থান সংকুলান হয় না হাসপাতালগুলোর।

তিনি বলেন, প্রশিক্ষণগুলোকে খুব সুপারভাইজড বলা হলেও, প্রথমসারির কয়েকটি মেডিকেল কলেজ ছাড়া বাকিগুলোতে শিক্ষক স্বল্পতা রয়েছে। নার্সিংয়ের ক্ষেত্রেও বিভিন্ন প্রশিক্ষণ ব্যবস্থা থাকলেও তা একেবারে মানসম্পন্ন নয়, প্রশিক্ষণের সময়কালও কম।

দেশে চিকিৎসক, নার্স এবং অন্য স্বাস্থ্যকর্মীদের মাঝে বিরাজমান সমন্বয়হীনতা দূর করার জন্য ‘বিশেষায়িত কোর্স’ এর আয়োজন করা যেতে পারে বলে মন্তব্য করেন ডা. নাজমুল।

তিনি বলেন, এই বিশেষায়িত কোর্সে স্বাস্থ্য ব্যবস্থার  অন্তর্গত বিভিন্ন পেশার লোকজন একসাথে থাকবেন। দেশে স্বাস্থ্য খাতে সক্ষমতা আগের চেয়ে বাড়লেও তা একেবারেই মানসম্পন্ন নয়। যা করোনা চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দক্ষিণ–পূর্ব এশিয়া অঞ্চলের সাবেক উপদেষ্টা ডা. মোজাহেরুল হক বলেন, বাংলাদেশে চিকিৎসা শিক্ষার মান এখন সর্বকালের সর্বনিম্নে। বাংলাদেশের মতো দেশে মান নিয়ন্ত্রণহীন এতো বেশি মেডিকেল কলেজের প্রয়োজন রয়েছে কিনা সেটা বড় প্রশ্ন।

পূর্বের শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের মানের তুলনায় বর্তমান শিক্ষকরা খুব নিম্নমানের উল্লেখ করে তিনি বলেন, চিকিৎসা সেবার মান বাড়াতে হলে চিকিৎসকদের প্রশিক্ষণের মানও বাড়াতে হবে৷ কমিউনিকেশন স্কিল, বিহেভিয়ারেল সায়েন্স এবং এথিকস এই তিনের প্রশিক্ষণ চিকিৎসকদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে দিতে হবে।

ডা. মোজাহেরুল হক বলেন, আর সমন্বিত স্বাস্থ্যসেবার জন্য মাল্টি প্রফেশনাল ট্রেনিং অবশ্যই দিতে হবে। শিক্ষকদের কাজ শিক্ষার্থীদের প্রশিক্ষণ দেয়া নয়, তাদের ভবিষ্যতের জন্য প্রস্তুত করা, যেনো তারা নিজেরাই শিখতে পারে।

মেডিকেল কলেজগুলোর মানের কথা উল্লেখ করে ডা. মোজাহেরুল হক বলেন, বাংলাদেশে এখন ‘লার্নিং এনভায়রনমেন্ট’ অনুপস্থিত। লাইব্রেরিতে শিক্ষার্থীরা যা খুঁজছে তা পাচ্ছে না। কোনও মেডিকেল কলেজেই পর্যাপ্ত স্কীলড ল্যাব নেই। বিশ্বায়নের এই যুগে দেশের চিকিৎসকরা কিভাবে বিদেশে গিয়েও প্রতিযোগিতা করতে পারেন সে কথা মাথায় রেখে মেডিকেল এডুকেশন, প্রশিক্ষণ এসব কিছু করতে হবে।

তিনি বলেন, স্বাস্থ্য অবকাঠামোর দিক থেকে বাংলাদেশকে একটি আদর্শ রাষ্ট্র বলা চলে। কিন্তু একটি কার্যকর উপজেলা হেলথ কমপ্লেক্স, একটি ইউনিয়ন হেলথ সেন্টার, একটি কমিউনিটি হেলথ ক্লিনিক খুঁজে পাওয়া দুষ্কর।

কানাডা থেকে ইউনিভার্সিটি অফ টরন্টোর ডালা লানা স্কুল অফ পাবলিক হেলথের সহকারী অধ্যাপক ড. সফি ভূইয়া বলেন, চিকিৎসক, নার্স বা অন্য যে কোনও স্বাস্থ্যকর্মীর জন্য তার ডিগ্রি বড় কথা নয়।  মেধার চর্চা হলো উত্তম পন্থা।

ডা. মোজাহেরুলের সাথে একাত্মতা পোষণ করে তিনিও বলেন, শিক্ষককে খুশি করে, মুখস্থবিদ্যার মাধ্যমেই আজকাল ডিগ্রি পাওয়া যায়, যা দিয়ে বেশিদূর যাওয়া সম্ভব নয়। মেধার চর্চা করতে হবে৷ অনেকেই আজকাল সামাজিক মর্যাদা বাড়াতে ডাক্তারি ডিগ্রি কিনতে চান।

ড. সফি ভূইয়া বলেন, কানাডায় মেডিকেল স্কুলে পড়ার আগে প্রি-মেডিকেলে পড়ে যোগ্যতা অর্জন করতে হয়। এরপর পাশ করেও প্রতিযোগিতামূলক লাইস্যান্সিং পরীক্ষায় (স্বাধীন প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে) অংশ নিতে হয়। চাকরিতে প্রবেশের আগে দুবছর রেসিডেন্সি করতে হয়, বাংলাদেশে যা এক বছর। দেশে ইন সার্ভিস ট্রেনিং বা দক্ষতা বাড়াতে কৌশলগত পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে।

তিনি বাংলাদেশের নবীন চিকিৎসকদের উদ্দেশ্যে বলেন, শুধু মুখস্থবিদ্যার উপর নির্ভর করে বসে থাকলে চলবে না। নিজের দক্ষতা বাড়াতে হবে। ডেথ সার্টিফিকেট লেখার মতো দক্ষতাও আজকাল দেখা যায়না।

আপনার মতামত দিন :